ঢাকা, ২০ জুন ২০২১, রবিবার

দেশে ফেসবুক ব্যবহারকারী বেড়েছে প্রায় এক কোটি

Facebook
WhatsApp
Twitter
Google+
Pinterest
লোগো

চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত বাংলাদেশের ৪ কোটি ৮২ লাখ ৩০ হাজার জন ফেসবুক ব্যবহার করছে। এই সংখ্যা দেশের মোট জনসংখ্যার ২৮ শতাংশ। তবে ফেসবুক ব্যবহারে এগিয়ে রয়েছে ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সী ও পুরুষেরা। মোট ব্যবহারীর ৬৯ দশমিক ১ শতাংশ পুরুষের বিপরীতে ৩০ দশমিক ৯ শতাংশ নারী ফেসবুক ব্যবহার করছেন।

২০২০ সালের এপ্রিল মাসে দেশে মোট ফেসবুক ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ৩ কোটি ৮৪ লাখ ৭৫ হাজার। আর ২০২১ সালের মে পর্যন্ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমটির ব্যবহারকারী সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ কোটি ৮২ লাখ ৩০ হাজার। কোভিড পরিস্থিতিতে শেষ এক বছরের দীর্ঘ সময় ঘরবন্দি থাকা মানুষের মধ্যে বেড়েছে ফেসবুকের ব্যবহার।

বর্তমানে দেশের মোট জনসংখ্যার ২২ দশমিক ৩ শতাংশ মানুষ ব্যবহার করছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের জনপ্রিয় এই প্লাটফর্মটি। গত এক বছরে এই প্লাটফর্মটি ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়ে প্রায় এক কোটি।করোনা পরিস্থিতির মধ্যে শুধু ফেসবুকই নয়, অন্যান্য সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের মধ্যে মেসেঞ্জার, ইনস্টগ্রাম ও লিংকডইনের মত প্লাটফর্মগুলোরও ব্যবহার বেড়েছে।

সম্প্রতি পোল্যান্ডভিত্তিক সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবস্থাপনার প্ল্যাটফর্ম নেপোলিয়নক্যাটের এক পরিসংখ্যানে এসব তথ্য জানা গেছে। প্রতিষ্ঠানটি বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারের মাসভিত্তিক পরিসংখ্যান প্রকাশ করে থাকে।

নেপোলিয়নক্যাটের পরিসংখ্যান অনুযায়ি, চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত বাংলাদেশের ৪ কোটি ৮২ লাখ ৩০ হাজার জন ফেসবুক ব্যবহার করছে। এই সংখ্যা দেশের মোট জনসংখ্যার ২৮ শতাংশ। তবে ফেসবুক ব্যবহারে এগিয়ে রয়েছে ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সী ও পুরুষেরা। মোট ব্যবহারীর ৬৯ দশমিক ১ শতাংশ পুরুষের বিপরীতে ৩০ দশমিক ৯ শতাংশ নারী ফেসবুক ব্যবহার করছেন।

আর ২ কোটি ১২ লাখ ফেসবুকব্যবহারকারীর বয়সই ১৮-২৪ বছরের মধ্যে। প্রতিষ্ঠানটির পরিসংখ্যান থেকে দেখা যায়, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে দেশে সবচেয়ে বেশি বেড়েছে মেসেঞ্জার ব্যবহারকারীর সংখ্যা। ২০২০ সালের এপ্রিল মাসে দেশে মেসেঞ্জার ব্যবহার করতেন ৯৩ লাখ ৯১ হাজার মানুষ।

এক বছরে এ সংখ্যা সাড়ে চার গুণ বেড়ে হয়েছে ৪ কোটি ২১ লাখ ৫০ হাজার। এই সংখ্যা দেশের মোট জনসংখ্যার ২৪ দশমিক ৫ শতাংশ। মেসেঞ্জার ব্যবহারকারীদের মধ্যে পুরুষ ৬৯ দশমিক ৩ শতাংশ এবং নারী ৩০ দশমিক ৭ শতাংশ।

পাশাপাশি বেড়েছে ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারীর সংখ্যাও। বর্তমানে ৪০ লাখ ৭১ হাজার ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারী রয়েছে বাংলাদেশে। যা জনসংখ্যার মাত্র ২ দশমিক ৩ শতাংশ। এর মধ্যে পুরুষ ৬৮ দশমিক ৬ শতাংশ এবং নারী ৩১ দশমিক ৪ শতাংশ। এখানেও ১৮ থেকে ২৪ বছর বয়সীর সংখ্যা বেশি, ৫৩ দশমিক ৭ শতাংশ। গত বছরের এপ্রিলে ইনস্টাগ্রাম ব্যবহারকারীর সংখ্যা ছিল ২৩ লাখ ৬১ হাজার ৩০০।

পেশাজীবীদের জন্য সামাজিক যোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম লিংকডইনের ব্যবহারও বাংলাদেশে বেড়েছে। এ বছরের মে মাস পর্যন্ত লিংকডইন ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৪১ লাখ ১৭ হাজার, যা জনসংখ্যার ২ দশমিক ৪ শতাংশ। ২৫ থেকে ৩৪ বছর বয়সী ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেশি, ২৪ লাখ।

গত বছর এপ্রিলে বাংলাদেশে ৩৩ লাখ ৪৩ হাজার মানুষ লিংকডইন ব্যবহার করতেন। দেশে উচ্চগতি ইন্টারনেট ও তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার বাড়ার কারণেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ব্যবহারও বেড়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এ বিষয়ে তথ্যপ্রযুক্তি নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞ সুমন আহমেদ গণমাধ্যমকে বলেছেন, প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ার কারণেই দেশে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যবহারও বেড়েছে।

করোনার সময়টাতে মানুষ আরও বেশি প্রযুক্তিমুখী হয়েছে। প্রান্তিক পর্যায়েও মানুষ এই অ্যাপ ব্যবহার করছে এবং সম্প্রতি ইনস্টাগ্রামের চ্যাটের সঙ্গে মেসেঞ্জার একীভূত হওয়ায় মেসেঞ্জার ব্যবহারের সংখ্যাও বেড়েছে বলে মনে করেন তিনি।

সূত্র : সময় নিউজ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *