ঢাকা, ১১ মে ২০২১, মঙ্গলবার

আশার বৃষ্টি

Facebook
WhatsApp
Twitter
Google+
Pinterest
লেখক

অচল হয়ে পড়েছে গ্রাম্য জীবন, তরু ছায়ায় বসেছে বিশ্রামের সদন। ঘামে ভেজা দগ্ধ শরীর লয়ে বিরক্ত,মাঠ-ঘাট, পুকুর বারি ছাড়া রিক্ত। হঠাৎ এক খণ্ড মেঘ গগণে দিত উঁকি, ছেলে-বুড়োর মনে আনন্দের বান সে কী! সেই চির চারিত ছড়া, “আল্লা মেঘ দে, পানি দে, ছায়া দে“- এভাবে বন্দে।

আশার বৃষ্টি
কেয়ন ইমরান

প্রচণ্ড রৌদ্রতাপ খাঁ খাঁ চারিদিক,
এক ফোটা বৃষ্টির তরে মাগিছে ভিখ।
অচল হয়ে পড়েছে গ্রাম্য জীবন,
তরু ছায়ায় বসেছে বিশ্রামের সদন।
ঘামে ভেজা দগ্ধ শরীর লয়ে বিরক্ত,
মাঠ-ঘাট, পুকুর বারি ছাড়া রিক্ত।
হঠাৎ এক খণ্ড মেঘ গগণে দিত উঁকি,
ছেলে-বুড়োর মনে আনন্দের বান সে কী!
সেই চির চারিত ছড়া, “আল্লা মেঘ দে,
পানি দে, ছায়া দে“- এভাবে বন্দে।
শ্লুক বলাকার পাল উড়ে যেত মূহুর্তে,
উত্তপ্ত পৃথিবী ঠাণ্ডা হত প্রবল বায়ুতে।
তারপর ঝমঝম বৃষ্টিতে স্নান করত সব,
কী সুন্দর সৃষ্টি তব হে আমার রব!
দগ্ধিত প্রাণ সতেজ হত আশার বারিপাতে,
একটু পরিশ্রান্ত হত সকলেই দীর্ঘ ক্লান্তিতে।
তব পানে চেয়ে আছে সকলেই অধীরে,
চাও না খোদা তুমি একবার ফিরে।
তব সকাশে মোদের এই আহবান,
একটু বারি দিয়ে মোদের তৃষ্ণা মেটান।
রুক্ষ সবই হয়ে গেছে বারি অভাবে,
ধরার বুকে আশার বৃষ্টি এসো নেবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *